পদ্মার জলে নববধূকে হারিয়ে পদ্মাপারে বসে কাঁদছেন স্বামী

ফেঞ্চুগঞ্জ প্রতিদিন ডেস্ক:: নববধূ সুইটি খাতুন পূর্ণিমা (২০) কে নিয়ে বুকভরা স্বপ্ন নিয়ে সবপ্নের ঘর বেঁধেছিলেন আসাদুজ্জামান রুমন (২৬)। কিন্তু বিয়ের আনুষ্ঠানিকতা শেষ না হতেই নৌকাডুবিতে নিখোঁজ হন নববধূ সুইটি খাতুন পূর্ণিমা ।  শুক্রবার (০৬ মার্চ) সন্ধ্যায় রাজশাহী নগরীর শ্রীরামপুর এলাকার পদ্মা নদীতে নৌকাডুবির এ ঘটনা ঘটে। একই নৌকায় স্ত্রীর সহযাত্রী ছিলেন রুমন। নৌকাডুবিতে ভাগ্যক্রমে রুমন বেঁচে যান। তার সঙ্গে বেঁচে গেছেন নৌকার আরও ৩১ যাত্রী। এরা সবাই নিখোঁজ কনের স্বজন। কিন্তু ২৪ ঘণ্টা পেরিয়ে গেলেও সন্ধান মেলেনি নববধূ পূর্ণিমার। আর এই কষ্ট ও দুঃখ নিয়ে বুকে হাহাকার নিয়ে পদ্মাপারে বসে কাঁদছেন স্বামী আসাদুজ্জামান রুমন ।

তবে এরই মধ্যে  দুর্ঘটনার পর পদ্মা নদী থেকে নিখোঁজ কনের চাচা শামীম (৪০), চাচি মনি বেগম (৩৫), তাদের মেয়ে রশ্মি (১০), কনের দুলাভাই রতন আলী (২৮), ভাগনি মরিয়ম (৮) এবং খালাতো ভাই এখলাসের (২৮) লাশ উদ্ধার করা হয়। শুক্রবার সন্ধ্যার পর থেকে শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত এসব লাশ উদ্ধার হয়।

এদিকে পদ্মাপারে বসে থেকে সারাদিন মরদেহ উদ্ধারের ঘটনা দেখে কাঁদছেন বর রুমন। সন্ধ্যা পর্যন্ত মেলেনি তার প্রিয়তমার লাশ। এই যাত্রায় বেঁচে ফিরলেও মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছেন তিনি। কথা বলার শক্তি হারিয়ে ফেলেছেন রুমন। নির্বাক দৃষ্টিতে পদ্মা নদীর দিকে চেয়ে সারাদিন কেটে গেছে তার।

কান্নাজড়িত কণ্ঠে রুমন বলেন, আমরা যে নৌকায় ছিলাম সেটি হঠাৎ বিকল হয়ে যাই। এরপর দমকা হাওয়ায় উল্টে যায় নৌকাটি। অন্যদের সঙ্গে সাঁতরে তীরে ফিরলেও পূর্ণিমাকে হারিয়ে ফেলেছি আমি। তবে শেষবারের মতো তার মুখ দেখতে চাই আমি।

আরো পড়ুন: প্রেমিকার বিয়ে, গলায় গুলি চালালেন পুলিশ সদস্য

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *